কম্পিউটার কি.? কম্পিউটারের জনক কে ? কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে ?

Spread the love

কম্পিউটার কি ?

কম্পিউটার কি ? কম্পিউটার হল একটি গাণিতিক যন্ত্র যা গণনার কাজ অতি দ্রুত করতে পারে | কম্পিউটার শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ Compute যার অর্থ হচ্ছে গণনা করা | 1833 সালে সর্বপ্রথম কম্পিউটার এর নকশা তৈরি করা হলেও বাংলাদেশ কম্পিউটার সর্বপ্রথম এসেছে 1964 সালে |

কম্পিউটার কি ?

 কম্পিউটারের জনক কে ?

কম্পিউটারের জনক কে, চার্লস ব্যাবেজ,কম্পিউটার কি
কম্পিউটারের জনক কে : চার্লস ব্যাবেজ

 সাধারণত বিজ্ঞানী চার্লস ব্যাবেজকে কম্পিউটারের জনক বলা হয় | তিনি সর্বপ্রথম এনালিটিক্যাল ইঞ্জিন নাম একটি যন্ত্র তৈরীর পরিকল্পনা গ্রহণ করেন 1833 সালে | তারপর তার পরিকল্পনা ও নকশার ওপর ভিত্তি করেই বর্তমান আধুনিক কম্পিউটার তৈরি করা হয় | চার্লস ব্যাবেজের সেই এনালিটিক্যাল ইঞ্জিন এর পরিকল্পনায় আধুনিক কম্পিউটার তৈরি করা হয়েছে বলে চার্লস ব্যাবেজকে কম্পিউটারের জনক বলা হয় |

আরো পড়ুন :- ফ্রিল্যান্সিং কি ? ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব ?

 আধুনিক কম্পিউটারের জনক কে ?

জন ভন নিউম্যান, আধুনিক কম্পিউটারের জনক কে ?,কম্পিউটার কি
আধুনিক কম্পিউটারের জনক কে : জন ভন নিউম্যান

 অপরদিকে আধুনিক কম্পিউটারের  জনক বলা হয় জন ভন নিউম্যান কে | জন ভন নিউম্যান ছিলেন একজন মার্কিন গণিতবিদ | নিউ ম্যান প্রোগ্রামিং , কম্পিউটার বিজ্ঞান, পরিসংখ্যান সহ আরও বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন |

 পৃথিবীর সর্বপ্রথম কম্পিউটারের নাম কি ?

পৃথিবীর সর্বপ্রথম কম্পিউটারের নাম কি, ENIAC
ENIAC (Electronic Numerical Integrator and Computer )

ENIAC (Electronic Numerical Integrator and Computer ) এনিয়াক হলো পৃথিবীর সর্বপ্রথম কম্পিউটার | এ কম্পিউটার এটি সর্বপ্রথম প্রোগ্রাম নিয়ে কাজ করে | এরপর থেকেই মূলত কম্পিউটারের প্রজন্মের আবির্ভাব হয় | যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময় একটি পুরোপুরি ইলেকট্রিক কম্পিউটার নির্মাণের পরিকল্পনা শুরু করেন | সেখানে 40 জন বিজ্ঞানী মাটির নিচে 50 ফুট বাই 30 ফুটের  একটি কক্ষে তিন দেয়াল জুড়ে থাকা কম্পিউটার টি চালাতেন |

কম্পিউটার কি ?

আরো পড়ুন :- Google adsence গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে ইনকাম করার উপায়

কম্পিউটারের শ্রেণীবিভাগ :

 কম্পিউটারে সাধারণত চার ভাগে ভাগ করা যায় |

 1. সুপার কম্পিউটার 

 2. মেইনফ্রেম কম্পিউটার

 3. মিনি কম্পিউটার 

 4. মাইক্রো কম্পিউটার

1. সুপার কম্পিউটার
সুপার কম্পিউটার, কম্পিউটার কি.?
সুপার কম্পিউটার

যে কম্পিউটার আকৃতির দিক থেকে সবচাইতে বড় এবং  যার তথ্য সংগ্রহ ও তথ্য প্রক্রিয়াকরণের ক্ষমতা সবচাইতে বেশি তাকে সুপারকম্পিউটার বলে |

2. মেইনফ্রেম কম্পিউটার

মেইনফ্রেম কম্পিউটার হল সুপার কম্পিউটারের থেকে ছোট কিন্তু অন্য কম্পিউটারে চাইতে বড় | বিভিন্ন বড় বড় প্রতিষ্ঠান গুলো এই ধরনের কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকে | যেমন IBM4341, IBM4120  ইত্যাদি |

3. মিনি কম্পিউটার

মিনি কম্পিউটার হচ্ছে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং আকারে দিক থেকে সবচাইতে ছোট | মিনি কম্পিউটারের দাম অনেক সস্তা | সাধারণত খেলাধুলা, ইন্টারটেনমেন্ট, অফিশিয়াল কাজ ইত্যাদি ক্ষেত্রে মিনি কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়ে থাকে |

4. মাইক্রো কম্পিউটার

 মাইক্রো কম্পিউটার কে পার্সোনাল কম্পিউটার বলা হয়ে থাকে | মাইক্রো কম্পিউটার তিন ভাগে ভাগ করা যায় |

1. সুপার মাইক্রো

2. ডেক্সটপ 

3. ল্যাপটপ

1. সুপার মাইক্রো

 সবচেয়ে শক্তিশালী মাইক্রো কম্পিউটার হচ্ছে সুপার মাইক্রো | এর আরেকটি নাম হল ওয়ার্ক স্টেশন | সুপার মাইক্রো কম্পিউটার ক্ষমতা যেকোন মিনি কম্পিউটারে কাছাকাছি |

 2. ডেক্সটপ

কম্পিউটার কি desktop pic
High Configure Desktop

 ডেক্সটপ কম্পিউটার  টি অতি সহজেই অল্প জায়গার মধ্যে স্থাপন করা যায় |

 3. ল্যাপটপ

Laptop কম্পিউটার কি
Laptop

 যে কম্পিউটারটি ডেক্সটপ এর থেকেও ছোট এবং অতি সহজেই বহন ও ব্যবহার করা যায় সেগুলো কে ল্যাপটপ বলা হয় | এই কম্পিউটার গুলো সাধারণত কোলের উপর রেখো ব্যবহার করা যায় |

Top ten apps for android সেরা 10 টি ফ্রি চ্যাটিং অ্যাপস 2020

কম্পিউটার কি ? কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে ?

 সাধারণত দুটি মাধ্যমের সমন্বয়ে কম্পিউটার কাজ করে থাকে | যার একটি হল হার্ডওয়ার আরেকটি হলো সফটওয়্যার |

1. হার্ডওয়ার

 হার্ডওয়ার  হলো কম্পিউটারের বাহ্যিক সকল যন্ত্রাংশ যেগুলো আমরা দেখতে পারি বা স্পর্শ করতে পারি | হার্ডওয়্যারকে সাধারণত তিন ভাগে ভাগ করা হয় |

a. ইনপুট
b. সিস্টেম ইউনিট  বা সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (CPU)
c. আউটপুট
a. ইনপুট

 সাধারণত যে সকল যন্ত্রাংশ মাধ্যমে ব্যবহারকারী কম্পিউটারের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারে সেই সকল যন্ত্রাংশগুলোকে ইনপুট যন্ত্রাংশ বলা হয় | যেমন মাউস, কিবোর্ড, ক্যামেরা, মাইক্রোফোন ইত্যাদি |

b. সিস্টেম ইউনিট  বা সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট CPU

সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট CPU কে কম্পিউটারের প্রাণ বলা হয় | সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট আবার তিন ভাগে ভাগ করা যায় |

 1. লজিক্যাল ইউনিট

 যেকোনো ধরনের গাণিতিক সমীকরণের ক্ষেত্রে লজিক্যাল ইউনিট ব্যবহৃত হয়ে থাকে |

2.  মেমরি ইউনিট

 মেমরি ইউনিট এ বিভিন্ন রকম তথ্য সংরক্ষণ করা হয়ে থাকে |  মেমরি ইউনিট কে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায় | 

A. প্রাইমারি মেমোরি 

B. সেকেন্ডারি মেমোরি

 C. প্রাইমারি মেমোরি

A. প্রাইমারি মেমোরি 

RAM, ROM
RAM

কম্পিউটার চালানোর জন্য যে মেমোরিতে  সকল প্রয়োজনীয় প্রোগ্রামগুলো মেমরিতে সংরক্ষণ করা হয়  তাকে প্রাইমারি মেমোরি ইউনিট বলে |

 B. সেকেন্ডারি মেমোরি 
Hard Disk, techguye
Hard Disk

 কম্পিউটারের যে মেমোরিতে সকল তথ্য গুলো স্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা হয়ে থাকে তাকে সেকেন্ডারি মেমোরি ইউনিট বলে |

c. আউটপুট

ব্যবহারকারীর নির্দেশ অনুযায়ী বিভিন্ন কাজ বা প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হওয়ার পর উক্ত প্রক্রিয়ার ফলাফল কম্পিউটার যে সকল ডিভাইসের মাধ্যমে ব্যবহারকারীকে প্রদান করে বা ব্যবহারকারী নিকট প্রদর্শন করে সেই সকল যন্ত্রাংশগুলোকে আউটপুট বলে | যেমন মনিটর প্রিন্টার স্পিকার প্রজেক্টর ইত্যাদি |

কম্পিউটার কোন কোন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় ?

 বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে কম্পিউটার ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে বর্তমানে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়ে থাকে | নিম্নে ক্ষেত্রে গুলো উল্লেখ করা হলো :-

1. অফিস-আদালত

2. শিক্ষা ক্ষেত্রে 

3. চিকিৎসা ক্ষেত্রে 

4. কৃষি ক্ষেত্রে 

5. ব্যাংকিং কাজকর্মে 

6. যোগাযোগ ব্যবস্থা 

7. গবেষণা ডিজাইন 

8. প্রোগ্রামিং 

9. বিনোদন 

10.আবহাওয়া পূর্বাভাস ইত্যাদি |


Spread the love

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *